করমচায় মন তাজা

করমচা। টক স্বাদের ছোট আকৃতির মুখরোচক একটি ফল। এই ফল গ্রাম থেকে এখন শহরেও চাষ করা হয়। কারও কারও বাড়রি ছাদ কিংবা বারান্দায়ও দেখা মেলে। একসময়ে গ্রামে করমচার প্রচুর ফলন হতো। করমচা খুবই জনপ্রিয় টকজাতীয় ফল। কাঁটায় ভরা এ গাছ, পাতা ও ফলে নান্দনকিতার ছোঁয়া থাকায় অনেকে সৌর্ন্দযর্বধনের জন্যও এ গাছ রোপণ করে থাকেন। এর গোলাপি রং বাগানের শোভা বাড়িয়ে দেয়।
করমচায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ও খনিজ। এ ফলের অনেক গুণ। এতে আছে ১৮ দশমিক ২ ভাগ জলীয় রস, ২ দশমিক ৩ ভাগ প্রোটিন, ২ দশমিক ৮ ভাগ খনিজ, ৯ দশমিক ৬ ভাগ স্নেহ, ৬৭ দশমিক ১ ভাগ শর্করা। এ ছাড়া খনিজের মধ্যে ক্যালসিয়াম শূন্য দশমিক ১৬ ভাগ, ফসফরাস শূন্য দশমিক ৬ ভাগ এবং লৌহ ৩৯ দশমিক ১ ভাগ।

প্রতি ১০০ গ্রাম করমচায় পাওয়া যায় ৩৬৪ ক্যালরি, রিবোফ্লেভিন শূন্য দশমিক ১ মিলিগ্রাম, নায়াসিন শূন্য দশমিক ২ মিলিগ্রাম, আয়রন ১ দশমিক ৩ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেশিয়াম ১৬ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ২৬০ মিলিগ্রাম, কপার শূন্য দশমিক ২ মিলিগ্রাম এবং ১০০ গ্রাম তাজা ফলে রয়েছে ২০০ দশমিক ৯৪ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি করমচায় চর্বি এবং ক্ষতকির কোলস্টেরেল থাকে না।

ভিটামিন সিতে ভরপুর করমচা মুখে রুচি বাড়ায়। এ ফল রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে হৃৎপিণ্ডের সুরক্ষা দেয়। শরীরের অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণ কমাতেও সাহায্য করে, যকৃত ও কিডনি রোগ প্রতিরোধে আছে বিশেষ ভূমিকা। এ ছাড়া মৌসুমি সর্দি-জ্বর, কাশিতে করমচা খান বেশি করে।

  • কোলেস্টেরল কমায়: যাঁদের কোলেস্টারলজনিত সমস্যা আছে, তাঁরা মৌসুমে করমচা খাওয়া ভালো, এতে কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। করমচায় চর্বি এবং ক্ষতিকর কোলেস্টেরল থাকে না, তাই যাঁদের ওজন নিয়ে সমস্যা তাঁরা খেতে পারেন।
  • ইনফেকশন দূর করে: ভিটামিন সিতে ভরপুর করমচা মুখে রুচি ফিরিয়ে দেয়, ক্ষুধামান্দ্য, অরুচি আর শরীরে জানা-অজানা কোনো ধরনের ইনফেশন আছে, তাঁরা করমচা খেতে পারেন।
  • হৃৎপিণ্ডের সরক্ষা দেয়: করমচার উচ্চমাত্রার পটাসিয়াম রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রেখে হৃৎপিণ্ডের সুরক্ষা দেয়। শরীরের অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণ কমাতেও সাহায্য করে।
  • লিভার ও কিডনি ভালো রাখে: যকৃত ও কিডনির রোগ প্রতিরোধে আছে বিশেষ ভূমিকা, সমস্যা হওয়ার আগেই খেতে হয়, সমস্যা তৈরি হলে খাওয়া বাদ দিতে হয়।
  • সিজনাল ফ্লু কমায়: করমচা যেহেতু নির্দিষ্ট মৌসুমেই জন্মে, তাই মৌসুমি সর্দি-জ্বর, কাশিতে করমচা খান বেশি করে। জুস করে খেলে বেশি ফল পাওয়া যায়।
  • পেটের সমস্যা দূর করে: করমচা কৃমিনাশক হিসেবে ওষুধের বিকল্প কাজ করে। এ ছাড়া পেটের নানা অসুখের দাওয়াই করমচা।
  • শরীরে ক্লান্তি দূর করে: করমচা একটি ব্যালেন্সড ফল, তাই শরীরের ক্লান্তি দূর করে শরীরকে চাঙ্গা রাখে।
  • বাতব্যথা কমায়: বাতরোগের ব্যথাজনিত কারণে ব্যথা দূর করতে ও বাত নিরাময়ে করমচা খুব উপকারী।
  • দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখে: করমচাতে থাকা ভিটামিন ‘এ’ চোখের জন্য খুবই উপকারী, দৃষ্টিশক্তি প্রখরতা দেয়।
  • ত্বক ভালো রাখে: এটি ত্বক ভালো রাখে ও রোগ প্রতিরোধে কার্যকর।
  • দাঁত ও মাড়ির শক্তি জোগায়: করমচায় ভিটামিন সি বেশি থাকায় দাঁত ও মাড়ির সুরক্ষা দেয়, অনেক মনে করেন টক বোধহয় দাঁতের এনামেল ক্ষয় করে, এ ক্ষেত্রে করমচায় খাটে না বরঞ্চ দাঁত ভালো রাখে।

কাঁচা করমচা গায়ের ত্বক ও রক্তনালি শক্ত করে এবং রক্তক্ষরণ বন্ধ করে। পাতা গরম পানিতে সিদ্ধ করে পান করলে মৌসুমি জ্বর নিরাময়ে উপকার পাওয়া যায়। শিকড়ের রস গায়ের চুলকানি ও কৃমি দমনে সাহায্য করে। যাঁদের রক্তে পটাসিয়ামের মাত্রা বেশি, তাঁদের করমচা না খাওয়াই ভালো। মৌসুমে তাজা করমচা খান নিয়মিত, অনেক রোগ এড়ানো যাবে।

লেখক: খাদ্য পথ্য ও আকুপ্রেশার বিশেষজ্ঞ

ছবি: সেলিনা শিল্পী

Share

Recent Posts

গোল্ডেন মিল্কশেকের উপকারিতা

গোল্ডেন মিল্ক, হলুদের দুধ নামেও পরিচিত। প্রাচীন ভারতবর্ষের একটি স্বাস্থ্যকর পানীয়, আজ যা পশ্চিমা সংস্কৃতিতে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। এই উজ্জ্বল… Read More

February 6, 2023

কুসুম গরম পানিতে শরীর-মন তাজা

শীতের সময় আমাদের শরীর রুক্ষ হয়ে ওঠে, যার দরুন পেটে সমস্যা, খিদে না লাগা থেকে শুরু করে ত্বকের অনেক সমস্যাই… Read More

January 16, 2023

লাল মুলার নানা উপকারিতা

মুলার উপকারিতা অনেক। বিশেষত লাল মুলার। নানাভাবেই এটা খাওয়া যায়। তবে সালাদ করে খাওয়াটা বেশি উপকারী। জানাচ্ছেন খাদ্য ও পথ্যবিশেষজ্ঞ আলমগীর… Read More

January 16, 2023

This website uses cookies.